আলেহান্দ্রা পিসারনিক > সেই রাতে, এই দুনিয়ায় >> অনূদিত কবিতা >>> ভাষান্তর বিকাশ গণ চৌধুরী

0
278

আলেহান্দ্রা পিসারনিক > সেই রাতে, এই দুনিয়ায় 

আলহান্দ্রা পিসারনিকের জন্ম আর্হেন্তিনার বৃহত্তর বুয়েনোস আইরেস-এর আবেইয়ানেদা শহরে ১৯৩৬ সালের ২৯ এপ্রিল। জাতিতে রুশ, ধর্মে ইহুদি। পড়াশোনা করেছেন স্প্যানিশ আর ইদিশে। ছোটবেলা থেকেই পিসারনিকের সঙ্গী ছিল মৃত্যুচেতনা আর অবসাদ। কবিতায় প্রভাব ছিল – আন্তেনিও পোর্শিয়া, র‌্যাঁবো আর মালার্মের, প্রভাব ছিল স্যুরিয়ালিজ়মেরও। তাঁর রচনা জুড়ে আমরা দেখতে পাই একাকীত্ব, শৈশব আর মৃত্যুর উপস্থিতি। অত্যাশ্চর্য্য সব কবিতা লেখার পাশাপাশি লিখেছেন সমালোচনা, অনুবাদ করেছেন অ্যাঁতনো আর্তো, অঁরি মিশো, এমে সেজার, ইভ বনফোয়া’র কবিতা, মার্গারিত দুরাসের রচনা, একটি নাটক আর বিশাল এক ডায়েরি। খ্যাতি পেয়েছিলেন, স্বীকৃতি পেয়েছিলেন ওক্তাবিও পাস, হুলিও কোর্তাজারের মতো কবিদের; তবুও অবসাদের ধাক্কায় ১৯৭২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর অতিমাত্রায় ঘুমের বড়ি খেয়ে মৃত্যুর দেশে চলে যান। এইখানে রইল তাঁর মৃত্যুর পর প্রকাশিত ‘সেই রাতে, এই দুনিয়ায়’ শীর্ষনাম দিয়ে তাঁর লিখে রেখে যাওয়া তিনটি কবিতা। এই কবিতাগুলোর অনুবাদে শব্দ ও পংক্তিবিন্যাসে, যতিচিহ্নের প্রয়োগে সামান্য স্বাধীনতা নিয়েছি, এই প্রাথমিক খসড়া সসঙ্কোচে পাঠকের দরবারে পেশ করলাম। 

রুবেন দারিও’র একটা কবিতা নিয়ে

মার্গারিত দুরাস আর ফ্রান্সেসকো তেনতরি মন্‌তালতো’র জন্য

একটা হ্রদের শেষ প্রান্তে বসে
মেয়েটি হারিয়ে ফেলল তার ছায়া
লাল পোশাকে আর বোবা চাউনিতে
তার ভাব নিয়ে একা-একা
হারিয়ে ফেলার বাসনাতো তার ছিল না

কে পৌঁছেছে এইখানে
যেখানে কখনও পৌঁছায়নি কেউ
তাকে তার সাথে নিয়ে যেতে এসেছিল
মুখহীন মুখের মুখোশপরা কেউ
লাল পোশাকে মৃতদের সেই রাজা

কালো পোশাক পরে তাকিয়ে দেখল
যে জানে না কীভাবে লোক ভালোবাসায় মরে
আর তাই পারে না কিছুই শিখে নিতে
মেয়েটি দুখী কারণ সে তখন ছিল না ওইখানে

সেই রাতে, সেই দুনিয়ায়

ওহ্‌ দয়া করো
মাঝরাত এখন এসেছে
কি ঠাণ্ডা
এই রাত
যে রাতের জন্য অপেক্ষায় আছি তা তো এখনও এলো না

প্রথম পতন

রামোন জিরাউ-এর জন্য

শব্দ ধরে ধরে
আমাকে শিখতে হবে
চূড়ান্ত অন্য প্রান্ত

আজ রাতে দেখব
কিন্তু না

কেউ কোনো রং নয়
গভীর কামনার

আমি আমাকে ভয় দেখালাম, ম্লান হয়ে গেলাম
ভয়ে নিজেকে কালো করে ফেললাম
আমার জিভ জানতে পারলো না
ফুঁফিয়ে কাঁদলাম, সমুদ্রের দিকে চেয়ে, ফুঁফিয়ে কাঁদলাম
গেয়ে উঠলাম কোনো এক গান, এক কলি

সেখানে সমুদ্র সেখানে আলো
সেখানে ছায়ারা সেখানে একটা মুখ

হারানো স্বর্গের ছাপমাখা একটা মুখ

আমি খুঁজেই চলেছি

কিন্তু আমি যা খুঁজে চলেছি
তা আমার যন্ত্রণার