নুসরাত নুসিন > কবিতাযাত্রা ও কবিতাগুচ্ছ >> পাঠ : বিজয়া রায়চৌধুরী

0
747

এই পোস্টটি শোনাও যাবে পড়াও যাবে। শোনা যাবে ইউটিউবে। পড়া যাবে এখানে নিচে। 

শোনার জন্য >>
শুধু শুনতে চান তাহলে নিচের লিংকটাতে ক্লিক করুন। পাঠ : বিজয়া  রায়চৌধুরী

https://www.youtube.com/watch?v=uaLOAzj_SYU

পড়ার জন্য >>

কবিতাযাত্রা >> কীভাবে কবিতা লেখা শুরু হয়

ছোটবেলায় অরণ্য আমায় টানত। অরণ্যের অন্ধকারে সাঁওতাল কবরের নির্জন সারি দেখতে ভালো লাগত। সেখানে কি দূর অভিজ্ঞান ও পরিভ্রমণের কথা লুকিয়ে ছিল? আমার কোথাও বেরিয়ে পড়তে ইচ্ছে করত। হাতে একতারা নিয়ে যে বাউল নিরুদ্দেশে বেরিয়ে পড়ে, তার সুরকে আমরা কি বলি? তার একাকী যাত্রা আমাকে প্রভাবিত করেছিল। অরণ্যের পরেই সে যাত্রায় মিশে আছে আমার কবিতা, সংবেদনা। মুহূর্ত এখানে জীবনের অধিক অনন্ত হয়ে যায়। আকারকে নিরাকারের হাতুড়ি দিয়ে ভাঙতে থাকি আর নিরাকারকে রূপ দেই নিছক ব্যক্তিতে। আলোতে মৃত্যুর নেশা সকাল ফোটায় সেভাবে পতন অবধারিত জেনেও ধেঁয়ে যাই শব্দের দিকে। পতিত হতে হতে জেনে যাই কবিতা মগ্নতা নয়, অন্ধত্ব নয়, বেঁচে থাকাও।

কবিতাগুচ্ছ >>

পাখিদের অনেক স্লোগান
পতনের দিনে ঝরছে এতগুলি পাতা! এইসব কারুবাসনাও ঝরে যাবে।
তোমার চোখ ক্রমাগত ছুঁয়ে যাচ্ছে ক্ষুধা ও ফেনা।
এইসব মহাপতনের ক্ষণে,
ভগ্নপ্রায় বটগাছটির নিচে অঢেল ক্রন্দনে
দুজনে মুখস্থ করছি পাখিদের অনেক স্লোগান।
পিপাসার আদিম প্ররোচক
থোকা থোকা ডুমুরের পাশে একটি বিষণ্ন ডুমুর
যেন পিকাসো হয়ে নদীচিত্রে আঁকছে হলুদ পাতা।
যেভাবে অনন্তে বেজে ওঠে নত কোনো ধ্বনি।
তুমিও কি পিপাসার আদিম প্ররোচক? ফেনা ও ফেন্সির
ক্ষুরধার? তোমার যাবতীয় ক্ষুধা সুরাশ্রয়ী গান হয়ে নগরে
মেলায়।
কিভাবে দিকভুলে একদিন নদীধারে পৌঁছেছিলে!
তারপর তনুপোড়া সূর্যের সঙ্গে
হঠাৎ ডুবে গেলে কখন?
নিঃসঙ্গে
ত্বকের গোড়ায় ঘূর্ণায়মান ডালিমবেদনা
এই যে হাওয়ায় উড়ে উড়ে পৌঁছে যাচ্ছিলে চাঁদে, বাম
হাতের পাতারা ছুঁয়ে যাচ্ছিল বৃত্তাকার আলো। অথচ
বৃত্ত ও কুসুমের ভূগোল ছেড়ে আরেকটু এগোলেই
প্রাণময় খাদের বসতি পেয়ে যেতে। সেখানে চাঁদ নেই,
একটুও জোনাকি নেই।
আঁধারজ্বলা জোনাকির নিঃসঙ্গে তুমিও তো আর নেই
অন্ধ ও রাজহাঁস
ভেবেছিলাম, একজন অন্ধ এসে ছুঁয়ে যাক কলমির বাগান।
ছুঁয়ে দিলেই সে দেখে নেবে অবাক সঞ্চরণ।
একজন হাতবন্ধ মানুষের দেখা মিললো।
অন্ধের হাত আছে। কিন্তু যার নেই সে কিভাবে ছুঁয়ে যায় মুঠো মুঠো
রক্তের গোপন সুরা?
তার হৃদয় কি রাজহাঁস? রাজহাঁসকে আমার সত্যি রাজা রাজা লাগে।
অপঘাত আর সংবেদনা বলছে
‘বিতিকিচ্ছিরি লাশের চেয়ে ফুলের রঙ অনেক সুন্দর’—এ কথা সত্যি মুখর। অপঘাত আর সংবেদনা বলছে, নিমফুলের গন্ধের চেয়ে নিমফলের বেদনা বেশি নিকটবর্তী।
অতএব, অবসাদে দুঃখ করো। কোনো সোনালি গমক্ষেতের দিকে যাবার প্রয়োজন নেই।
নুসরাত নুসিন >> কবি পরিচিতি
জন্ম ২১ নভেম্বর, ১৯৯০ সালে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে। পড়ালেখাসূত্রে রাজশাহীতে বসবাস। উত্তরকাল.কম নামে একটি নিউজ পোর্টালে সাব-এডিটর হিসেবে কর্মরত। প্রথম কবিতার বই দীর্ঘ স্বরের অনুপ্রাস (২০১৮)। পুরস্কার : জেমকন তরুণ কবিতা পুরস্কার (২০১৭)

পাঠ : বিজয়া রায় চৌধুরী